রিজার্ভ: তলানি থেকে উঠে আসার গল্প

চল্লিশ বছর আগে ১৯৮১-৮২ অর্থবছরে বাংলাদেশের বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ ছিল মাত্র ১২ কোটি ১০ লাখ ডলার।
এখন সেই রিজার্ভ তিন হাজার ৮০০ কোটি (৩৮ বিলিয়ন) ডলারের সর্বোচ্চ চূড়ায় অবস্থান করছে। বৃহস্পতিবার দিন শেষে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩৮ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এত বেশি রিজার্ভ আগে কখনোই ছিল না। রপ্তানি আয় এবং প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স বাড়ায় অর্থনীতির অন্যতম প্রধান সূচক রিজার্ভ বাড়তে বাড়তে এই মাইলফলক অতিক্রম করেছে।

তবে এই দীর্ঘ পথ মোটেও মসৃণ ছিল না। কখনও কখনও হোঁচট খেয়েছে। আমদানি ব্যয় মেটাতে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে। অনেক সময় রাজনীতিতেও ইস্যু হয়েছে এই রিজার্ভ; বাড়লে, সরকারের সাফল্য হিসেবে প্রচার করা হয়েছে। যেমনটি এখন করা হচ্ছে। আবার কমে গেলে বিরোধী দলের সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে সরকারকে।