বাজেটের ভাষা সহজ চায় মানুষ, ডিবিএমের জরিপ

স্থানীয় সরকার বিষয়ক গবেষণা, আলোচনা ও আন্দোলনের মূল প্রতিপাদ্য ছিল প্রশাসনিক বিকেন্দ্রিকরণ। এক্ষেত্রে প্রশাসনিক ক্ষমতার বিকেন্দ্রিকরণের পাশাপাশি জাতীয় বাজেট ও উন্নয়ন পরিকল্প র বিকেন্দ্রিকরণের বিষয়টি তেমনভাবে উঠে আসেনি কোন নীতি আলোচনায়। অথচ জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সাধারণ নাগরিকের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা গু রুত্বপূর্ণ বিষয় এবং সংবিধানের ১১, ৫৯ ও ৬০ অনুচ্ছেদের ভিত্তিতে এর জন্য উন্নয়ন পরিক ল্প না ও রাজস্ব/ কর কাঠামোর বিকেন্দ্রিকরণ প্রয়োজন । কেননা আম ল ানি ভর্ র ও অতিকেন্দ্রী ভ ূত জাতীয় পরিক ল্প না ও বাজেট প্রক্রিয়ায় সাংসদদের কার্যকরি অংশগ্রহণের সুযোগই যেখানে সীমিত সেখানে সাধারণ নাগরিক ও পেশাজীবীদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহন নিশ্চিত করা অনেক জঠি ল ও কঠিন বিষয়। বাজেট প্রক্রিয়ার ও কাঠামোর বিকেন্দ্রিকরণ ছাড়া তাই কার্যকর জনঅংশগ্রহণ সম্ভব নয়। অন্যদিকে বাজেটসহ নীতি নির্ধারণী প্রক্রিয়ায় দীর্ঘদিন জণগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ না থাকার কারণে রাষ্ট্রীয় ক্রিয়াকর্মে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রায় অনুপস্থিত, যার ফে ল দূর্নীতি আজ দারিদ্র দূরীকরণে সবচেয়ে বড় কাঠামোগত বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে । এ অবস্থা থেকে মুি ক্ত পেতে হে ল বাজেটকে গণতান্ত্রিক করার আন্দো ল ন সৃষ্টি করতে হবে যেখানে স্থানীয় নাগরিক কমিটি, উন্নয়ন সংগঠন, তৃণমূ ল সংগঠন, সংবাদমাধ্যম/ গোষ্ঠী ও সমাজের অন্যান্য অগ্রসর চিন্তাধারার মানুষেরা দেশের সক ল মান ুে ষর ন্যায্য উন্নয়ন পরিক ল্প নার জন্য কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় সরকারের কাছে ও কা ল তি করতে কাজ করবেন । এটা একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া এবং সে ল ক্ষ্যে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ল ড়াই চাি ল য়ে যেতে হবে।